করোনা: দৈনিক পঞ্চাশ হাজার টেস্ট করার পরামর্শ

 

করোনা শনাক্তে বারবার বেশি বেশি পরীক্ষার কথা বলা হলেও গত এক সপ্তাহ ধরেই তা ঘুরপাক খাচ্ছে পনের-ষোল হাজারেই। সবারই প্রশ্ন, কেন বাড়ছে না পরীক্ষার সংখ্যা? সময় সংবাদের অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রতি দফায় মাত্র চল্লিশ থেকে ষাট হাজার কিট আমদানি করা হয়। যে কারণে চাইলেও বেশি পরীক্ষা করানো সম্ভব নয়। আর এজন্য স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক দিলেন আমলাতান্ত্রিক জটিলতার অজুহাত।

করোনায় শনাক্তের সংখ্যা গত এক সপ্তাহে তিন থেকে চার হাজারের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে। পরীক্ষার সংখ্যা দেখলেই দেখা যায় সাত দিন আগে ১৭ই জুন সর্বোচ্চ টেস্টের দিনে শনাক্ত ছিলো সর্বোচ্চ। আঠারো থেকে তেইশ জুন সংখ্যাটা চৌদ্দ পনেরো বা ষোলো হাজারেই রয়ে গেছে।

অথচ বিশেষজ্ঞরা বলছে টেস্ট বাড়লে বাড়বে শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা। যত রোগী শনাক্ত হবে কোভিড মোকাবিলায় ততটাই নিজেদের সক্ষমতা।

শুরু থেকে দেশ জুড়ে পিসিআর ল্যাবের সংখ্যা বাড়লেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। অধিদপ্তরের তথ্য বলছে বলতে গেলে প্রতি সপ্তাহেই আসছে কিট। বিশ থেকে পঞ্চাশ হাজার করে ক’দিন পর পরই আসছে কিটের লট। শেষও হয়ে যাচেছ দ্রুতগতিতে। দাপ্তরিক জটিলতায় এক সঙ্গে আনা যাচ্ছেনা বড় অঙ্কের কিট দাবি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *